গ্রাফিক্স ডিজাইন কি? গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখার উপায় – Newfreelancing

0Shares

 

গ্রাফিক্স ডিজাইন হচ্ছে অনলাইন জগতের বিশাল সম্ভাবনাময় এক ভান্ডার।

Graphic design শেখার উপায় ও চাহিদা বাড়তেছে। এর গুরুত্ব ও মূল্য বেশি।

 

গ্রাফিক্স ডিজাইন কি বা কাকে বলে?

What is graphic design in bangla?

আমরা সহজ ভাষায় গ্রাফিক্স ডিজাইন বলতে বুঝি, গ্রাফিক্স শব্দটির অর্থ হচ্ছে ড্রইং বা রেখা (আঁকা)।

আর যদি ডিজাইন শব্দের অর্থ বুঝি তাহলে দাঁড়ায় নকশা বা পরিকল্পনা।

আমরা আরও জানি যে, গ্রাফিক্স শব্দের অর্থ বিভিন্ন। যেমন, চিত্র।

গ্রাফিক শব্দটি জার্মান শব্দ থেকে এসেছে।

আমি খুব সহজে বলতে চাই যে, চিত্র দ্বারা নকশা তৈরি করাকে গ্রাফিক্স ডিজাইন বুঝায়।

ডিজাইন শেখার উপায় ও চাহিদা বাড়তেছে।

মানুষের মনের কথা যা কিছু না বললে নয়- বেশির ভাগ সময় অনেক লোক এসে প্রশ্ন করে।

আমি গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখব বা বলে ফটোশপ শিখব?

গ্রাফিক্স ডিজাইন খুব সহজ কিন্তু এর পিছনে সব সময় ধৈর্য্য এর একটি বিশেষ সহযোগী অধ্যায় বলে আমি মনে করে থাকি।

কারণ ধৈর্য্য না থাকলে গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখা কঠিন বলে মনে করি আমি।

 

গ্রাফিক্স ডিজাইন করে কি হবে :

প্রথমেই বলে নেই ডিজাইন হচ্ছে অনলাইন জগতের এক বিশাল সম্ভাবনাময় ভান্ডার। প্রতিনিয়ত এর চাহিদা বাড়তে চলেছে।

ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ারে অন্যতম টাইটেল হচ্ছে গ্রাফিক্স ডিজাইনার।

তা ছাড়া অনলাইনের কথা বাদ দেন। অফলাইনে যে কাজ করা যায় তা একটু ভাবুন।

আমরা নানা ধরনের সাইনবোর্ড, ব্যানার, বিলবোর্ড, ভিজিটিং কার্ড, বিয়ের কার্ড, হালখাতার কার্ড, মেমো, ভাউচার, স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ইত্যাদি প্রতিষ্ঠানের সকল কাজ করার আগে গ্রাফিক্স করতে হয়।

এই সকল কাজ করে আপনি প্রতি মাসে ২৫ থেকে ৩০ হাজারের বেশি টাকা ইনকাম করতে পারেন।

এখন শুধু তাই নয় ওয়েব ডেভলপমেন্টের জন্য ওয়েব ডিজাইনের প্রয়োজন হয়।

সুতরাং, তখন আপনার এই গ্রাফিক্স ডিজাইনের প্রয়োজন হয়ে থাকে।

যেমন- ব্যানার, লোগো, এ্যাড ইত্যাদি কাজ গুলো আপনাকে শিখে নিতে হবে এবং পিসডি টু ওয়ার্ডপ্রেসের কাজ শিখে আপনি অনেক টাকা ইনকাম করতে পারেন।

আপনারা অনলাইনে সার্চ দিলে আরও বিস্তারিজ জানতে পারবেন গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখে কি হয়।

 

গ্রাফিক্স ডিজাইন করতে যা প্রয়োজন :

প্রথমত, এ্যালিমেন্টস (Elements)

দ্বিতীয়ত, ইকুইপমেন্ট (Equipment)

 

গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে গেলে যে বিশেষ সফটওয়্যার গুলো প্রয়োজন হয় :

১. এডোবি ফটোশপ – Adobe Photoshop

২. এডোবি ইলাস্ট্রেটর – Adobe Illustrator

৩. এডোবি ইনডিজাইন – Adobe In design

৪. করেল ড্র গ্রাফিক্স সুইট এক্স ফাইভ – CorelDraw Graphics Suite X5

৫. থ্রিডি ডিজাইন ম্যাক্স – 3D design max

৬. এডোবি ফ্লাশ – Adobe Flash ইত্যাদি।

আরও বিভিন্ন সফটওয়্যার ব্যবহার করে ডিজাইনের আকর্ষনীয় কাজ করা সম্ভব হয়।

গ্রাফিক্স ডিজাইন বর্তমান সময়ে খুব ভাল একটা আয়ের উৎস।

আপনার যদি আঁকা আঁকি বা কোন ইউনিক কিছু করতে ইচ্ছা করে তাহলে আপনাকে এই পেশায় স্বাগতম!

 

গ্রাফিক্স ডিজাইন এর ভবিষ্যৎ কেমন :

একজন দক্ষ ডিজাইনার এর আয় যদি লোকাল কোম্পানিতে চাকুরি করা হয়।

তাহলে প্রথম দিকে ২০-২৫ হাজার হয়ে থাকে এবং কয়েক বছর গেলেই বেতন ৪০-৫০ হাজারে দাঁড়ায়।

এটি গেল একটি লোকাল কোম্পানির কথা।

আজকাল এই ডিজাইন শিখে অনলাইনে সবাই ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে অনেক টাকা আয় করছে।

সেটা হতে পারে ৫০ হাজার থেকে ২ লাখ টাকা প্রতি মাসে।

আপনি যদি এই সেক্টরে দক্ষ হন তাহলে ফ্রিল্যান্সিং বা অনলাইনে মাসে ১-২ লাখ টাকা আয় করা তেমন কঠিন বেপার নয়।

তবে কাজ আগে ভাল ভাবে শিখতে হবে এবং বিস্তারিত জানতে হবে।

 

কিভাবে গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে পারবেন খুব সহজেই :

গ্রাফিক্স ডিজাইন কাজ শিখতে গেলে আপনাকে অনেকগুলো ধাপ পার করতে হবে।

আর আপনাকে জানতে হবে আপনি আসলেই গ্রাফিক্স ডিজাইন কেন শিখতে চাচ্ছেন?

প্রথমত,

আপনি সফট্ওয়্যার গুলো শিখে ফেলবেন। যেমন: ফটোশপ, ইলাস্ট্রেটর, ইনডিজাইন, কোরেল ড্র ইত্যাদি।

যে কোন একটা দিয়ে শুরু করুন (আপনার লক্ষ অনুযায়ী)।

সফট্ওয়্যার শেখার জন্য ইউটিউব আছে অথবা কোন ইন্সটিটিউট থেকেও শিখতে পারেন।

এছাড়া পরিচিত কারও কাছ থেকে শিখতে পারেন।

যিনি একাজ ভাল গ্রাফিক্স ডিজাইন কাজ পারেন। (আগে থেকে কম্পিউটার এর ব্যাসিক জানা থাকলে ভাল)।

দ্বিতীয়ত,

আপনি ডিজাইন থিওরি গুলো শিখে ফেলবেন ভাল করে। যেমন: টাইপোগ্রাফি থিওরি, কালার থিওরি ও ডিজাইন প্রিন্সিপাল ইত্যাদি।

থিওরি সম্পৃক্ত খুঁটি-নাটি সব শিখে ফেলবেন এবং কিভাবে এগুলো কাজে লাগানো যায় সেটাও মাথায় রাখবেন।

তৃতীয়ত,

এবার আপনার ডিজাইন শেখার সময়। আপনি ডিজাইন কপি করবেন।

ইন্টারনেট থেকে ডিজাইন দেখে দেখে কপি করবেন, ইউটিউব থেকে টিউটোরিয়াল দেখে কপি করবেন।

ডিজাইন দেখবেন এবং নিজে করার চেষ্টা করবেন।

এভাবে ডিজাইন কাজ করতে থাকলে আপনি সামনের দিকে এগোতে থাকবেন।

এছাড়া বিভিন্ন আর্টিকেল পড়বেন যেন নিজেকে আপডেট রাখতে পারেন।

 চতুর্থত,

কাজে লেগে থাকতে হবে এবং প্র্যাকটিস করতে হবে ভাল ভাবে।

এ পর্যন্ত আসতে পারলে বাকিটা আপনি নিজেই বুঝতে পারবেন। এরপর কি করতে হবে।

 

গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখার উপায় :

প্রথম ধাপ :

গ্রাফিক্স ডিজাইনার হতে হলে আপনাকে অবশ্যই প্রচন্ড ইচ্ছাশক্তি ও ধৈর্য্যশক্তি থাকতে হবে।

আপনি যদি কিছুদিন গ্রাফিক্স ডিজাইন সম্পর্কে রিচার্স করে ইউটিউবে ভিডিও দেখে আপনাকে গ্রাফিক্স ডিজাইনার হিসাবে দাবী করবেন।

তাহলে আপনি ভূল করবেন এবং শুরুতেই আপনাকে হোচট খেতে হবে, সামনে এগুতে পারবেন না।

যখন আপনি আপনার মন মানসিকতা সেট করবেন হ্যা যে করেই হোক গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখব।

তারপর আপনি গ্রাফিক্স ডিজাইন নিয়ে কাজ শুরু করে দিতে পারেন।

প্রথমেই আপনাকে গ্রাফিক্স ডিজাইনের সেক্টরগুলো সম্পর্কে জানতে হবে।

গ্রাফিক্স ডিজাইনের অনেক ভাগ রয়েছে।

যেমন- visual, interaction, motion, UI, UX, packaging design, print design, art & illustration ইত্যাদি।

এই বিষয়গুলো নিয়ে আপনাকে গবেষণা করতে হবে।

এগুলোর ভেতর থেকে আপনার যে সেক্টর ভাল লাগবে সেটা দিয়েই আপনি শুরু করতে পারেন।

আপনার গ্রাফিক্স ডিজাইনার হওয়ার স্বপ্ন পূরণের যাত্রা শুরু।

বলে রাখা ভাল কখনো ও এক সাথে সবগুলো সেক্টর নিয়ে কাজ শুরু করবেন না।

প্রথমে একটি সেক্টর নিয়ে শুরু করবেন।

 

দ্বিতীয় ধাপ :

দ্বিতীয় ধাপে এসে আপনাকে গ্রাফিক্স ডিজাইনের টুলস এবং সফটওয়্যার সংগ্রহ করতে হবে।

গ্রাফিক্স ডিজাইনের পপুলার দুইটি সফটওয়্যার এডোবি ফটোশপ ও এডোবি ইলেস্ট্রেটর সংগ্রহ করে শেখা শুরু করে দিন।

প্রাথমিক পর্যায়ে যদি আপনার সফটওয়্যারগুলো কিনে ব্যবহার করার মতো সামর্থ্য না থাকে।

তাহলে ইন্টারনেট ঘেটে পাইরেটেড মানের হলেও ক্র্যাক করে সফটওয়্যারগুলো ব্যবহার করতে পারবেন।

এডোবি ফটোশপ এবং ইলেস্ট্রেটর শেখার  জন্য ইউটিউবে অনেক ভিডিও রয়েছে।

সেখান থেকে যে কোন একটি চ্যানেল আপনার পছন্দনুযায়ী ব্যাসিক টুলস থেকে শেখা শুরু করে দিতে পারেন।

ইউটিউব ছাড়াও বর্তমানে বাংলাতেও গ্রাফিক্স ডিজাইনের উপর অনেক ব্লগ রয়েছে।

চাইলে ব্লগ থেকেও শিখতে পারেন।

পাশাপাশি আন্তজার্তিকভাবে গ্রাফিক্স ডিজাইনের উপর অনেক ব্লগ, ‍ফুরাম রয়েছে সেখানে যোগদান করে সেখান থেকেও শিখতে পারেন।

চাইলে আপনি ভাল কোন ট্রেইনার অথবা ভাল কোন গ্রাফিক্স ডিজাইন ট্রেনিং সেন্টারে ভর্তি হতে পারেন কাজ শেখার জন্য।

পাশাপাশি আন্তজার্তিক মানের ভাল ভাল ডিজাইনারদের অনলাইন ভিডিও কোর্স ক্রয় করে সেগুলো দেখে দেখে শিখতে পারেন।

 

তৃতীয় ধাপ :

এ পর্যায়ে এসে আপনার পেশার সাথে সম্পৃক্ত এমন লোকদের খুঁজে বের করতে হবে।

মানে অন্যান্য গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের সাথে আপনার যোগাযোগ রাখতে হবে।

গ্রাফিক্স ডিজাইন সম্পকৃতি বিভিন্ন গ্রুপে আপনাকে এড হতে হবে।

এবং আপনার ডিজাইন তাদের সাথে শেয়ার করতে হবে।

তাদের মন্তব্যগুলো ভাল ভাবে খেয়াল করে কাজ করতে হবে।

কোথায় আপনার ভুল আছে, কোথায় আরও শিখতে হবে, ফন্ট পছন্দ, কালার ঠিক ঠাক আছে কিনা?

তা তাদের কমেন্টস এর মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন।

 

চতুর্থ ধাপ :

ইংরেজিতে একটি প্রবাদ আছে “practice makes a man perfect” আপনাকে অনেক প্র্যাকটিস করতে হবে।

অন্য ডিজাইনারদের ডিজাইনগুলো ফলো করতে হবে।

তাদের ডিজাইন গুলো নিয়ে রিচার্স করতে হবে।

একটি ডিজাইন করতে তারা কি ধরনের কালার ব্যবহার করেছে, কি কি ফন্ট ব্যবহার করছে ইত্যাদি খেয়াল করতে হবে।

প্রয়োজনে আপনি তাদের ডিজাইনগুলো দেখে একই ডিজাইন করে বানানোর চেষ্টা করবেন।

এভাবে যত প্র্যাকটিস করবেন তত আপনার ডিজাইনের দক্ষতা বাড়বে।

কেননা প্রতিটা নতুন ডিজাইন কপি করতে গিয়ে আপনি এক একটি করে নতুন সমস্যার সম্মুখে পড়বেন।

আর তার সমাধানের জন্য বিভিন্ন জায়গায় রিচার্স করতে থাকবেন।

এতে করে অনেক নতুন নতুন জিনিস শিখতে পারবেন।

 

পঞ্চম ধাপ :

এ পর্যাযে আপনি নিজেকে একজন Graphic designer হিসাবে দাবী করতে পারেন।

এবং মোটামাটি ভাল বেতনে কোন প্রতিষ্ঠানে চাকুরি অথবা ফ্রিল্যান্সিং করে টাকা ইনকাম করছেন।

কিন্তু বর্তমানে যে প্রতিযোগী পরিবেশ সেখানে আপনাকে টিকে থাকতে হবে।

অবশ্যই অন্য সবার থেকে আলাদা হতে হবে, অর্জন করতে হবে আরও নতুন নতুন দক্ষতা।

সব সময় নতুন কিছু শেখার মন মানসিকতা থাকতে হবে এবং প্রযুক্তির সাথে নিজেকে আপগ্রেড রাখতে হবে।

উপরে উল্লেখিত গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখার উপায় গুলো ফলো করে পরিশ্রম করতে পারলেই আপনি একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনার হতে পারবেন ইনশাআল্লাহ।

 

মন্তব্য :

পরিশেষে বলা যায় যে, গ্রাফিক্স ডিজাইন কি? গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখার উপায় সম্পর্কে এখানে আমরা আলোচনা করেছি।সুতরাং, উপরে উল্লেখিত বিষয় গুলো মেনে কাজ করলে ইনশাআল্লাহ আপনি একজন Graphic designer হতে পারবেন।

তা হলেই মার্কেটপ্লেসে সফল ও দক্ষতার সাথে সহজেই ভাল ও সঠিক ফলাফল পাবেন।

অতএব, আমার লেখা সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টে জানাতে ভূলবেন না। যদি আমি কোন বিষয় মিস করে থাকি অথবা আপনি আরও কোন বিষয় সম্পর্কে জানতে চান তাহলে অবশ্যই আমাকে কমেন্ট করে জানাবেন।

এই ধরণের লেখার নিয়মিত আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে এবং টুইটারে ফলো করে রাখতে পারেন।

ধন্যবাদ

 

Leave a Comment