ফাইভারে আইপি সমস্যার সমাধান- Fiverr IP problem

0Shares

 

অ্যাকাউন্ট ব্যান হওয়ার পেছনে অন্যতম একটি কারণ হচ্ছে ইন্টারনেটের আইপি সমস্যা- Fiverr IP problem. ফাইভারে আইপি সমস্যার সমাধান- আসলে আইপি সমস্যা দেখিয়ে ফাইবার কখনো একাউন্ট ব্যান করে না।

তারা একাদিক একাউন্ট ব্যবহারের অপরাধে অ্যাকাউন্ট ডিজেবল করে থাকে

বিষয়টির সাথে শুধু ইন্টারনেটের আইপি নয়, বরং ডিভাইসের বেপারটিও জড়িত।

তাই ফাইভারে আইপি সমস্যার সমাধান জানা প্রয়োজন।

 

ফাইভারে আইপি সমস্যার সমাধান (Fiverr IP problem) :

বিভিন্ন সময়ে অনেককে দেখা যায় তাদের একাউন্ট ডিজেবল হয়েছে একাদিক একাউন্ট থাকার কারণে।

কিন্তু, সে দাবি করছে তার একাধিক অ্যাকাউন্ট নেই।

এখানে আমরা ফাইভারকে মিথ্যাবাদী ভাবব, নাকি যার একাউন্ট ব্যান হয়েছে তাকে মিথ্যাবাদী বলবো?

আসলে কেউই মিথ্যাবাদী নয়, বোঝার ভূল রয়েছে এখানে।

মূলত ভূলটা আমাদেরই, তবে কিছু কিছু সময় ফাইভারের ভুল থাকতে পারে।

যেহেতু, এটা তাদের নিয়ম থেকে অটোমেটিক ধরা হয়।

বিভিন্ন কারনে সিস্টেমের অ্যালগরিদম কাজ করতে গিয়ে ভূল টার্মে পড়ে একাউন্টের সমস্যা হওয়া অস্বাভাবিক কিছু নয়।

তবে এটা খুবই কম। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই আমাদের ভূল থাকার সম্ভাবনা রয়েছে।

 

ফাইভারে আইপি সমস্যার সমাধান নিম্নে আলোচনা করা হল :

How to solve IP problem in Fiverr?

আপনি যদি ফাইভার আইপি সমস্যা নিয়ে খুব বেশি চিন্তা করে থাকেন।

তবে আপনার যদি সুযোগ থাকে রিয়েল আইপি নিয়ে নেবেন।

কিন্তু, যদি আপনি শেয়ার আইপি ব্যবহার করেন তার মানে এই নয় যে, আপনার ফাইভার একাউন্ট ডিজেবল হবে।

শেয়ার আইপি এর মাধ্যমে আপনি যদি ফাইভার একাউন্ট ব্যবহার করেন সে ক্ষেত্রে ফাইভার সাধারণত আপনার আইপি এর পাশাপাশি লোকেশন এবং ডিভাইস ম্যাক আইডি ট্রাক করে থাকে।

এক্ষেত্রে ডিভাইসের ম্যাক আইডি এর প্রতি বেশি প্রাধান্য দেওয়া হয়।

এর মানে দাঁড়াচ্ছে আইপি নিয়ে আপনাকে খুব বেশি চিন্তা না করলেও হবে।

মূলত আপনি যদি একই কম্পিউটার অথবা একই মোবাইলে একাধিক আইডি ব্যবহার না করেন, তাহলে আপনার ভয়ের তেমন কিছু নেই।

তবে কেউ যদি একই ওয়াইফাই রাউটার এর মাধ্যমে দুইটি আলাদা পিসিতে দুইটি একাউন্ট ব্যবহার করে থাকেন।

তাহলে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে আপনাদের ফাইভারের সার্ভিস যেন আলাদা হয়।

অন্যথায়,

আপনাদের দুইটি অ্যাকাউন্টই ব্যান হতে পারে।

আপনার বন্ধু ও আপনি দুজনেই একই সার্ভিস দিয়ে থাকেন এবং দুজনেই ফাইভারে একাউন্ট ও মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন রয়েছে।

আপনারা বিভিন্ন সময়ে শেয়ারইট এ্যাপ এর মাধ্যমে ফাইল আদান প্রদান করে থাকেন।

এক্ষেত্রে অবশ্যই নিশ্চিত হয়ে নিন ফাইল আদান প্রদানের আগে আপনার এবং আপনার বন্ধুর দুজনেরই মোবাইল ডাটা অফ আছে কিনা।

যদি না থাকে অবশ্যই অফ করে নিবেন।

 

ফাইভারে আইপি সমস্যার সমাধান নিয়ে প্রশ্ন এবং উত্তর :

প্রশ্ন-১ : রিয়েল আইপি নেওয়া কি বাধ্যতামূলক?

উত্তর : না। রিয়েল আইপি নেওয়া মোটেও বাধ্যতামূলক নয়। তবে সুযোগ থাকলে সম্পূর্ণভোবে নিরাপদ থাকার জন্য, আপনি চাইলে রিয়েল আইপি নিতে পারেন।

প্রশ্ন-২ :  আমার ইন্টারনেটের আইপি কিভাবে চেক করব?

উত্তর : গুগলে গিয়ে সার্চ করবেন “What is my IP” লিখে। তাহলে যেই আইপিটা দেখতে পাবেন। সেটাই আপনার ইন্টারনেটের আইপি। আরও কিছু সাইট রয়েছে যেগুলো দিয়ে আইপি চেক করা যায়। কিন্তু আমি যেভাবে বলেছি এটার মাধ্যমে নিশ্চিত হতে পারবেন খুব সহজেই।

প্রশ্ন-৩ : আমার ISP বা ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার আমাকে রিয়েল আইপি দিয়েছে কিনা কিভাবে বুঝব?

উত্তর : আপনি যদি রিয়েল আইপি নিয়ে থাকেন, তাহলে আপনাকে যে আইপিটা দেওয়া হবে সেই আইপি দিয়েই আপনার রাউটার কনফিগার করা হবে। গুগলে “What is my IP” লিখে সার্চ দিলে একই আইপি শো করবে। যদি আপনার রাউটারের ভেতরে দেওয়া আইপি এবং গুগলে পাওয়া আইপি না মিলে যায়। তাহলে বুঝতে হবে এটা রিয়েল আইপি না।

প্রশ্ন-৪ : আমি কি এক সাথে মোবাইল এবং কম্পিউটারে আমার ফাইভার আইডি ব্যাবহার করতে পারব?

উত্তর : অবশ্যই পারবেন শুধু একটি কম্পিউটার বা একটি মোবাইল না আপনার যদি একাধিক কম্পিউটার বা একাধিক মোবাইল থাকে সেগুলোতেও চাইলে আপনার ফাইভার একাউন্টটি ব্যাবহার করতে পারবেন। অর্থাৎ একই সাথে ব্যাবহার করতে পারবেন তবে খেয়াল রাখতে হবে ওই সব মোবাইল বা কম্পিউটারে অন্য কোন ফাইভার অ্যাকাউন্ট কখনো যেন ব্যবহার করা না হয়।

প্রশ্ন-৫ :  মোবাইল ডাটা দিয়ে পিসিতে ফাইভার একাউন্ট করলে কি ওয়াইফাই দিয়ে ব্যাবহার করলে কোন সমস্যা হবে?

উত্তর : মোবাইল ডাটা দিয়ে পিসিতে ফাইভার একাউন্ট করলে ওয়াইফাই দিয়ে ব্যাবহার করলে কোন সমস্যা হবে না।

আমি নিজে মোবাইল ডাটা দিয়ে পিসিতে ফাইভার একাউন্ট করে এখন ওয়াইফাই দিয়ে ব্যাবহার করতেছি। কোন সমস্যা নেই।

 

অবশ্যই পড়ুন-

প্রশ্ন-৬ : আমি আমার ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের লাইন পরিবর্তন করব এতে কি কোন সমস্যা হবে?

উত্তর : ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের লাইন পরিবর্তন করলে এক্ষেত্রে আপনার আইপিও পরিবর্তন হচ্ছে, সেটা হোক রিয়েল অথবা শেয়ার আইপি। এক্ষেত্রে আপনি নিজের সুরক্ষার জন্য ফাইভার সাপোর্টে একটি মেসেজ দিয়ে রাখতে পারেন যে, আপনি আপনার ইন্টারনেট লাইন পরিবর্তন করছেন।

যদিও এটা জরুরী নয়, কিন্তু এটা করলে আপনি নিরাপদ থাকবেন। আমি নিজে ফাইভারকে এমনটা জানিয়েছিলাম লাইন পরিবর্তনের আগে এবং তারা বলেছে তাদের সিস্টেম হয়তো অ্যালগরিদম এর উপরে নির্ভর করে একাউন্ট ব্যান করলে করতেও পারে।

কিন্তু যেহেতু আমি তাদেরকে জানিয়েছি, তাই যদি আমার একাউন্ট ব্যান হয়, তাদের সাথে পূনরায় যোগাযোগ করতে বলেছে। তারা অ্যাকাউন্ট ঠিক করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। সুতরাং বুঝতেই পারছেন, তাদেরকে জানালে আপনি নিরাপদ থাকবেন।

প্রশ্ন -৭ : আমি পিসিতে ব্রডব্যান্ড ব্যবহার করি এবং বাসায় থাকলে মোবাইলেও ব্রডব্যান্ড ব্যবহার করি। কিন্তু বাহিরে গেলে মোবাইল ডাটা ব্যবহার করি এতে কি কোন সমস্যা হবে?

উত্তর : না। এক্ষেত্রে কোনো সমস্যা হবে না আপনার অ্যাকাউন্টের। আপনি নিচিন্তায় ব্যাবহার করতে পারেন।

প্রশ্নঃ-৮ : পাবলিক ওয়াইফাই অথবা বন্ধুর ওয়াইফাই দিয়ে ইন্টারনেট ব্যবহার করা দরকার হলে ফাইভারের বিষয়টি নিরাপদ রাখবো কিভাবে?

 

অবশ্যই পড়ুন-

প্রশ্ন-৯ : কোন মার্কেট অথবা পাবলিক প্লেসে গিয়ে যদি যদি ফ্রি ওয়াইফাই ব্যাবহার করি এবং সেই একই ওয়াইফাইতে অন্য কোন ফাইভার ব্যবহারকারী থেকে থাকে, তাহলে কি কোন সমস্যা হবে?

উত্তর : ফাইভার অত্যন্ত স্মার্ট। তারা একটি ইন্টারনেট আইপি থেকে আপনি কতবার লগইন করলেন বা আপনি সবসময় যে লোকেশন থেকে ব্যবহার করেন।

সেটাই আপনার পার্মানেন্ট নাকি পাবলিক ওয়াইফাই পারমানেন্ট এসব বিভিন্ন বিষয়ের উপর নির্ভর করে পাবলিক ফ্রি ওয়াইফাই ব্যাবহার করলেও আপনার কোন সমস্যা হবে না। এমনকি ওই ওয়াইফাইতে অন্য কোন ফাইভার ব্যবহারকারী থাকলে তাতেও আপনার কোন সমস্যা হবে না।

সুতরাং যদি প্রতিনিয়ত আপনি এটা করেন তাহলে ঝামেলা হতে পারে। আর আমার অবশ্যই মতামত থাকবে নিরাপত্তার স্বার্থে এসব ওয়াইফাইতে লগিন না করা।

উত্তর : যদি সময় বিশেষ এমনটা দরকার পড়ে তাহলে এসব ওয়াইফাই এর সাথে কানেক্ট হওয়ার আগে, ফাইভার এ্যাপ থেকে লগ আউট করে নিন। এ্যাপ এর মেনু থেকে সেটিংসে গেলে লগ আউট অপশন পাবেন।

প্রশ্ন-১০ : আমি মোবাইল ডাটা অথবা মডেম দিয়ে ফাইভার ব্যবহার করি। কোনো সমস্যা আছে?

উত্তর : যারা মোবাইলের ডাটা অথবা মডেম দিয়ে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন। তাদের ভয়ের কোন কারণ নেই। প্রতিবার ইন্টারনেট কানেকশন বন্ধ এবং অন হওয়ার সাথে সাথে আপনাদের আইপি নিয়মিত পরিবর্তন হয়।

অনেকে এই আইপি পরিবর্তনের বিষয়টিও ভয়ের কারণ মনে করেন। কিন্তু কোন ভয় নেই আপনারা নির্ভয়ে যে কোন সিমের ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারেন। শুধুমাত্র খেয়াল রাখবেন, একাধিক ফাইভার একাউন্ট ব্যবহার না করলেই হবে।

সুতরাং, পরিশেষে বলব সতর্ক থাকার জন্য জানার চেষ্টা করুন।

কিন্তু ফাইভারের সাথে কোন রকম চালাকি করার চেষ্টা করবেন না।

চালাকি করলে ধরা খাবেন, এমনকি কিছুদিন অথবা কয়েক মাস ধরা খাননি, তাতে খুশি হওয়ার কিছু নেই।

ধরা একদিন পড়বেনই এবং ফলাফল সরাসরি ব্যান।

 পরামর্শ : Fiverr IP problem – যদি ফ্রিল্যান্সিংকে ক্যারিয়ার হিসাবে নিতে চান, তাহলে সৎভাবে নিয়ম মেনে কাজ করুন।

আশা করি কোনো সমস্যায় পড়বেন না।

 

মন্তব্য :

পরিশেষে বলা যায় যে, ফাইভারে আইপি সমস্যার সমাধান – Fiverr IP problem সম্পর্কে এখানে বিস্তারিত আলোচনা করেছি।

সুতরাং, উপরে উল্লেখিত বিষয় গুলো মেনে কাজ করলে ইনশাআল্লাহ আপনার কোন সমস্যা হবে না ফাইভারে আইপি নিয়ে।

অতএব, আমার লেখা সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টে জানাতে ভূলবেন না।

যদি আমি কোন বিষয় মিস করে থাকি অথবা আপনি আরও কোন বিষয় সম্পর্কে জানতে চান তাহলে অবশ্যই আমাকে কমেন্ট করে জানাবেন।

এই ধরণের লেখার নিয়মিত আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে এবং টুইটারে ফলো করে রাখতে পারেন।

ধন্যবাদ

 

Leave a Comment